মঙ্গলবার , ৩০ এপ্রিল ২০২৪ | ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. ! Без рубрики
  2. অন্যান্য
  3. অপরাধ
  4. আমাদের পরিবার
  5. খেলাধুলা
  6. জাতীয়
  7. দেশজুড়ে
  8. ধর্ম
  9. ফিচার
  10. বাণিজ্য
  11. বাংলাদেশ
  12. বিনোদন
  13. বিশ্ব
  14. ভিডিও
  15. মুন্সীগঞ্জ

নগরীতে তীব্র তাপদাহে বেড়েছে এসি ও ফ্যানের কেনাবেচা

প্রতিবেদক
admin
এপ্রিল ৩০, ২০২৪ ৮:০২ অপরাহ্ণ

তীব্র তাপদাহে অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে জনজীবন। মৃদু ও মাঝারি তাপপ্রবাহে গত কয়েকদিন ধরে নগরবাসীর ভোগান্তি বাড়িয়ে দিয়েছে। সেই সাথে সাথে সমান তালে বেড়েছে লোডশেডিংও। এই তীব্র গরম থেকে পরিত্রাণ পেতে বিকল্প পথ খুঁজছেন অনেকেই। তাই বাজারে চাহিদা বেড়েছে চার্জার ফ্যান, এয়ারকন্ডিশনার, বৈদ্যুতিক পাখার মতো সামগ্রীর। বেড়েছে এদের কেনাবেচা।

সোমবার (২৯ এপ্রিল) বিকেল সরেজমিনে নগরীর চাষাঢ়া, ২নং রেল গেইট ও বঙ্গবন্ধু সড়কের পাশে অবস্থিত ইলেক্ট্রনিক্সের দোকান গুলোতে ঘুরে এরকম তথ্য জানা যায়। মার্কেটে আসা ক্রেতারা জানান, ‘তীব্র গরমে ফ্যানের চাহিদা বেড়েছে। এ কারণে বেশি দাম চাইছেন বিক্রেতারা।’ অপরদিকে বিক্রেতাদের দাবি, ‘ন্যায্য দামেই পণ্য বিক্রি করা হচ্ছে। বেশি মূল্য রাখার কোনো সুযোগ নেই।’

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, কিছুদিন আগেও ইলেক্ট্রনিক্সের দোকান গুলোতে ক্রেতাদের তেমন ভিড় ছিল না। কিন্তু টানা তাপপ্রবাহের কারণে নাজেহাল ক্রেতাদের সমাগম বেড়েছে ইলেক্ট্রনিক্সের দোকান গুলোতে। তার সাথে তাপ প্রবাহকে পুঁজি করে বেড়েছে চার্জার ফ্যান, এয়ারকন্ডিশনার, বৈদ্যুতিক পাখার মূল্য।

সিঙ্গার প্লাস শো-রুমের ম্যানেজার গোলাম কিবরিয়া জানান, ‘তীব্র তাপদাহে টানা কয়েকদিন যাবত ক্রেতাদের ব্যাপক সাড়া পাচ্ছি। আমাদের দোকানে ফিক্সড প্রাইজ হওয়ায় কোনো দর কষাকষির কোনো সুযোগ থাকছে না। এখন আমাদের ক্রেতাদের তুলনায় জোগান কমে গিয়েছে। বর্তমানে আমাদের শো-রুমে এয়ারকন্ডিশনানের অর্ডার সবচেয়ে বেশি পাওয়া যাচ্ছে।’

২নং রেল গেইট এলাকায় নূর ইলেক্ট্রনিক্সের সত্ত্বাধিকারী মো. নাজিমউদ্দীন জানান, ‘আমাদের দোকানে এখন ক্রেতা সমাগম বেড়েছে। সবচেয়ে বেশী বিক্রি হয়েছে সিলিং ফ্যান ও স্ট্যান্ড ফ্যান। তবে, এখন ডিলারদের নিকট থেকে অতিরিক্ত দামে পণ্য কিনতে হচ্ছে। যেজন্যে ফ্যানের মূল্য বেড়েছে।’

মার্কেটে আসা ক্রেতা শহীদুল ইসলাম জানান, ‘তীব্র তাপদাহের সাথে বেড়েছে লোডশেডিংও। তাই, মার্কেটে এসেছি চার্জার ফ্যান কিনার জন্য। বাজারে এসে জানতে পারলাম এখন ফ্যানের মূল্য চওড়া। বাচ্চাদের কথা চিন্তা করে বাধ্য হয়ে উচ্চমূল্যেই ফ্যান কিনেছি।’

সর্বশেষ - রাজনীতি