মঙ্গলবার , ২৩ এপ্রিল ২০২৪ | ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. ! Без рубрики
  2. অন্যান্য
  3. অপরাধ
  4. আমাদের পরিবার
  5. খেলাধুলা
  6. জাতীয়
  7. দেশজুড়ে
  8. ধর্ম
  9. ফিচার
  10. বাণিজ্য
  11. বাংলাদেশ
  12. বিনোদন
  13. বিশ্ব
  14. ভিডিও
  15. মুন্সীগঞ্জ

তীব্র তাপমাত্রায় দায়িত্বরত ট্রাফিক পুলিশ সদস্যরা

প্রতিবেদক
admin
এপ্রিল ২৩, ২০২৪ ৬:৩৪ অপরাহ্ণ

নারায়ণগঞ্জ জেলায় তাপমাত্রা প্রায় ৪১ ডিগ্রি সেলসিয়াস এতো তাপমাত্রা ,রোদ, তীব্র গরম, যানজট, গাড়ির হর্ণ সব কিছু মিলিয়ে বিভীষিকাময় এক পরিস্থিতি বিরাজ করছে পুরো শহরজুড়ে।

এসবের মধ্যেও নির্বিগ্নে সেবা দিয়ে যাচ্ছেন ট্রাফিক পুলিশের সদস্যরা। রোদের প্রখরতা ও তীব্র উত্তাপেও সাধারণ মানুষ যেখানে বাইরে বের হতে ভয় পাচ্ছে তখন তারা জনসাধারণকে সেবা দিতে সড়কে দাড়িয়ে দায়িত্ব পালন করছেন।

সোমবার ২২ এপ্রিল  নগরীর বিভিন্ন পয়েন্টে ঘুরে দেখা মিলে ট্রাফিক পুলিশের সদস্যদের দায়িত্ব পালনের এমন দৃশ্য। ট্রাফিক পুলিশের সদস্যরা বলছেন, এবারের মতো তাপপ্রবাহ এর আগে কখনও দেখিনি আমরা। এমনিতেই নারায়ণগঞ্জ শহরে প্রচণ্ড গাড়ির চাপ সামলাতে আমাদের নানা রকম সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়।

এছাড়া রাস্তায় দাঁড়িয়ে অতিরিক্ত শব্দ দূষণ থেকে শুরু করে বায়ু দূষণের শিকার হতে হয় আমাদের। এর মধ্যে চলমান দাবদাহ আমাদের কষ্টের পরিমাণ আরও বাড়িয়ে দিয়েছে। তবুও আমরা শহরের সড়কে যান চলাচল স্বাভাবিক রাখতে নির্বিগ্নে ও নিরবিচ্ছিন্নভাবে কাজ করে যাচ্ছি।

‘তবে, রাস্তায় দীর্ঘক্ষণ রোদে দাঁড়িয়ে থাকা ট্রাফিক সদস্যরা পানি শূন্যতা, মাথাব্যথা ও শারীরিক দুর্বলতায় ভুগছেন। অনেক ট্রাফিক সদস্যরা ডিহাইড্রেশনজনিত সমস্যায় ভুগছে। যেসব ট্রাফিক সদস্যের হাই-প্রেশার আছে তাদের এই গরমে দায়িত্ব পালন করতে আরও বেশি সমস্যা হচ্ছে। এছাড়া ইউনিফর্ম পরে এ গরমে দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে আরও বেশি সমস্যা হচ্ছেন।

শহরের প্রাণকেন্দ্র চাষাড়ায় দায়িত্ব পালন করছিলেন ট্রাফিক পুলিশ সার্জেন্ট আসিফ হোসেন। তার সাথে কথা হলে তিনি প্রতিবেদকে বলেন, চাকরি জীবনে কখনও এত বেশি তাপমাত্রা দেখিনি। পুলিশের চাকরি করি কষ্ট হলেও মানুষের স্বার্থে দায়িত্ব পালন করা আমার কাজ। নারায়ণগঞ্জএমনিতেই ব্যস্ত শহর এরমধ্যে আমরা দায়িত্ব পালনে অবহেলা করলে সাধারণ মানুষদের ভোগান্তিতে পড়তে হবে। এজন্য সবকিছু উপেক্ষা করে কাজ করতে হচ্ছে।

নগরীর ২নং রেইগেট এলাকার  মোড়ে দায়িত্ব পালন করছিলেন ট্রাফিক পুলিশের কন্সটেবল  শহীদুল ইসলাম  তিনি উজ্জীবিতকে বলেন, অতিরিক্ত গরমের জন্য সরকার থেকে আমাদের ছাতা দেওয়া আছে। প্রয়োজনে ছাতা ব্যবহার করে ট্রাফিক নিয়ন্ত্রণে আমরা কাজ করি। কষ্টতো হয়। এরপরও শান্তির জায়গা হলো মানুষকে সেবা দিতে পারা।

নারায়ণগঞ্জ  আবহাওয়া অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ মো. শাহিনুর ইসলাম জানান, সোমবার নারায়ণগঞ্জের মৌসুমের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৪০ দশমিক ২ ডিগ্রি রেকর্ড করা হয়েছে। বেলা ২টার দিকে এ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়।

নারায়ণগঞ্জ জেলা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ট্রাফিক) রুহুল আমিন সাগর উজ্জীবিতকে বলেন, তীব্র দাবদাহে ট্রাফিক সদস্যরা তাদের দায়িত্ব নিষ্ঠার সঙ্গে পালন করছেন। তাদের বেশি বেশি পানি পানের পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। একজন সার্জেন্ট দায়িত্বরত অবস্থায় অসুস্থ হয়েছিলেন। সবমিলিয়ে সদস্যদের স্বাস্থ্যর বিষয়টি নিয়ে আমরা সতর্ক আছি।

সর্বশেষ - রাজনীতি