বৃহস্পতিবার , ৪ এপ্রিল ২০২৪ | ৪ঠা বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অন্যান্য
  2. অপরাধ
  3. আমাদের পরিবার
  4. খেলাধুলা
  5. জাতীয়
  6. দেশজুড়ে
  7. ধর্ম
  8. ফিচার
  9. বাণিজ্য
  10. বাংলাদেশ
  11. বিনোদন
  12. বিশ্ব
  13. ভিডিও
  14. মুন্সীগঞ্জ
  15. রাজনীতি

যে কারণে প্রার্থী হতে ভোটারের সমর্থনের বিধান তুলে দিলো ইসি

প্রতিবেদক
admin
এপ্রিল ৪, ২০২৪ ১২:৫১ অপরাহ্ন

অতীতে স্থানীয় এই নির্বাচনে স্বতন্ত্র থেকে নির্বাচন করতে হলে ২৫০ ভোটারের সমর্থনসূচক স্বাক্ষর জমা দিতে হতো। আসছে নির্বাচনে সেই বিধান তুলে দেওয়া হয়েছে।

নির্বাচন কমিশন বলছে, যেন যে কেউ চাইলেই প্রার্থী হতে না পারে। এজন্য প্রার্থী সমর্থনে স্বাক্ষর নেওয়ার বিধান করা হয়েছিল। এটা গণতন্ত্রের পরিপন্থী।

এছাড়া যারা সমর্থন দেন তারা অনেক সময় নির্যাতনের শিকার হন। এই ধরনের অভিযোগ আছে। তাই সেটা তুলে দেওয়া হয়েছে।

বুধবার (০৩ এপ্রিল) নির্বাচন কমিশনার মো. আলমগীর এসব কথা বলেন।

সম্প্রতি নির্বাচন কমিশন উপজেলা নির্বাচন বিধিমালা ও আচরণ বিধিমালা সংশোধন করে বেশ কিছু পরিবর্তন আনে। সেগুলো নিয়ে ব্যাখ্যা করেন এই কমিশনার।

স্থানীয় এই নির্বাচনে স্বতন্ত্র থেকে নির্বাচন করতে হলে ২৫০ ভোটারের সমর্থনসূচক স্বাক্ষর জমা দেওয়ার বিধান তুলে দেওয়ার ব্যাখ্যা দিতে গিয়ে তিনি বলেন,  নির্বাচন মানে হেলাখেলা বা ছেলেখেলা নয়।

রাষ্ট্র পরিচালনার বিষয়, স্থানীয় সরকার পরিচালনার বিষয়। সেখানে নিয়ম করেছিল যেন যে কেউ চাইলেই প্রার্থী হতে না পারে। এজন্য প্রার্থী সমর্থনে স্বাক্ষর নেওয়ার বিধান করা হয়েছিল। এটা গণতন্ত্রের পরিপন্থী।

এছাড়া যারা সমর্থন দেন তারা অনেক সময় নির্যাতনের শিকার হন। এই ধরনের অভিযোগ আছে। তাই আমরা সেটা তুলে দিয়েছি।

তিনি বলেন, ওই বিধান প্রতিপালন করতে গিয়ে সমর্থন দেখানোর জন্য প্রার্থীরা ছলচাতুরি বা মিথ্যার আশ্রয়ও নিতেন। প্রার্থী নিজেই ডানহাত, বাম হাত মিলিয়ে স্বাক্ষর করতেন, তাই এই ধরনের আইন কেন থাকবে যা ন্যায়ের পক্ষে না। তাই তুলে দিয়েছি। এটা অন্যায় করার জন্য মানুষকে উৎসাহিত করে।

এক প্রশ্নের জবাবে সাবেক এই ইসির সচিব বলেন, কোনো দল থেকে প্রার্থী না দিলে স্বতন্ত্র থেকে দাঁড়াবে। এক্ষেত্রে কারোরই সমর্থনসূচক স্বাক্ষর লাগবে না।

জেনে বুঝে শুনে গণতন্ত্র, রাজনীতির জন্য সহায়ক সেটা তো করতে হবে। কোনো রাজনৈতিক দল সুবিধা দেওয়ার জন্য নয়। তাহলে তো সংসদেও করতাম।

আরও পড়ুনঃ মানুষের সেবা করলে জনপ্রতিনিধিদের কেউ হারাতে পারবে না: প্রধানমন্ত্রী

স্থানীয় নির্বাচন দলীয়ভাবে করার বিষয়ে এই কমিশনার বলেন, পৃথিবীর অনেক দেশেই তৃণমূলে রাজনৈতিক নির্বাচন হয়। আমাদের এখানে সেটা আগে ছিল না।

পরে এখানেও করা হয়েছিল। হয়তো ভালো দিক চিন্তা করেই করেছিল। এখন হয়তো তারা মনে করছে অপপ্রয়োগ বেশি হচ্ছে।

দেশে প্রথমবারের মতো আইন করে ডিজিটাল প্রচারের ব্যবস্থা এনেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। আসছে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনেই প্রার্থীরা এই সুযোগ পাবেন। আর এতে কমবে প্রার্থীর নির্বাচনি ব্যয়।

ইসি আলমগীর বলেন, ডিজিটাল প্রচারের ব্যবস্থা করায় খরচ কমে যাবে। ইউটিউটে, ফেসবুকে প্রচারে ব্যয় কমে যাবে।

ইসি ঘোষিত পরিকল্পনা অনুযায়ী, আগামী ৮ মে থেকে চার ধাপে উপজেলা পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

সর্বশেষ - দেশজুড়ে