বুধবার , ২০ মার্চ ২০২৪ | ৪ঠা বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অন্যান্য
  2. অপরাধ
  3. আমাদের পরিবার
  4. খেলাধুলা
  5. জাতীয়
  6. দেশজুড়ে
  7. ধর্ম
  8. ফিচার
  9. বাণিজ্য
  10. বাংলাদেশ
  11. বিনোদন
  12. বিশ্ব
  13. ভিডিও
  14. মুন্সীগঞ্জ
  15. রাজনীতি

ছাত্রীকে যৌন হেনস্তা: ভুক্তভোগী ও জবির দুই শিক্ষক ডিবি কার্যালয়ে

প্রতিবেদক
admin
মার্চ ২০, ২০২৪ ১০:২৫ পূর্বাহ্ন

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ফাইরুজ সাদাফ অবন্তিকা ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই আরেক ছাত্রী তারই বিভাগের শিক্ষকের বিরুদ্ধে যৌন হেনস্তার অভিযোগ তুলেছেন। জবির ফিল্ম ও টেলিভিশন বিভাগের শিক্ষক আবু সাহেদ ইমনের বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ করছেন তারই বিভাগের শিক্ষার্থী কাজী ফারজানা মীম। বিষয়টি নিয়ে এই শিক্ষার্থী ও তার বিভাগের দুই শিক্ষককে ডিবি কার্যালয়ে ডাকা হয়েছে।

বুধবার (২০ মার্চ) দুপুরে ওই ছাত্রী এবং দুই শিক্ষককে ডিবিতে ডাকা হয়। এখন তারা মুখোমুখি হচ্ছে। তাদের এ বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করবে ডিবি। সেখানে ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীর স্বজনদেরও ডাকা হবে বলে জানিয়েছে ডিবির একটি সূত্র।

যাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ দুই শিক্ষক হলেন-জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিল্ম ও টেলিভিশন বিভাগের শিক্ষক আবু সাহেদ ইমন ও একই বিভাগের চেয়ারম্যান জুনায়েদ আহমেদ হালিম।

এর আগে মীম নামের ওই শিক্ষার্থী ১৮ মার্চ দুপুরে ডিবি কার্যালয়ে যান এবং তিনি অভিযোগ জানান। তার অভিযোগের প্রেক্ষিতেই আজ দুই শিক্ষককে ডাকা হয়েছে।

এই অভিযোগকারী শিক্ষার্থী মঙ্গলবার একই ঘটনায় রাষ্ট্রপতির কাছেও অভিযোগ নিয়ে যান। এছাড়া তার বিভাগের দুই শিক্ষক তাকে বহিষ্কারের হুমকি দিয়েছে তার প্রতিকার চেয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য বরাবর এ আবেদন করেন।

ডিবি কার্যালয়ে অভিযোগ দেওয়ার পর মিম সাংবাদিকদের বলেন, আমার বিভাগের শিক্ষক আবু সাহেদ ইমন আমাকে যৌন হেনস্তা করেছেন। এই অভিযোগ দেওয়ার পর থেকে বিভাগের চেয়ারম্যান জুনায়েদ আহমেদ হালিম ও অভিযুক্ত শিক্ষক আবু সাহেদ ইমন আমাকে সেটি তুলে নিতে নানাভাবে চাপ দিতে থাকেন। এতে আমি রাজি না হওয়ায় তারা আমাকে হাত-পা কেটে হত্যা করাসহ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কারের হুমকি দেন। আমাকে এক ঘরে করে দেওয়া হয়। আমাকে বিভিন্ন পরীক্ষায় শূন্য নম্বর দিয়ে ফেল করানো হয়। আমার অনার্সের ফাইনাল ভাইভায় আমাকে ফেইল করানো হয়।

ফারজানা মীম বলেন, আমি স্বাভাবিক জীবনযাপন করতে পারছি না। কখন আমাকে মেরে ফেলা হয় সেটা জানি না। শুধু আমি না, তারা আমার পরিবারকেও নানাভাবে হুমকি-ধামকি দিচ্ছে এবং হেনস্তা করছে। বর্তমান এই অবস্থা থেকে বাঁচতে ডিবি কার্যালয়ে অভিযোগ নিয়ে এসেছি।

ওই ছাত্রী জানান, তার সাথে ঘটনাটি ২০২১ সালে ঘটে। তাকে ওই সময় আবু সাহেদ ইমন যৌন হেনস্তা করেন। বিষয়টি সেসময় তিনি তার বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের কাছে অভিযোগও দেন। কিন্তু তারা কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। উল্টো তাকে নানাভাবে মানসিক নির্যাতন করা হয়।

সর্বশেষ - দেশজুড়ে